রায়পুরে বিভিন্ন স্হানে ভেজানো সুপারিতে, দূষিত হচ্ছে পরিবেশ, ধ্বংস হচ্ছে জলজ প্রাণী….

24

 

এস.এম জাকির হোসাইন

লক্ষ্মীপুর জেলার রায়পুর উপজেলার বিভিন্ন স্থানের জলাশয়গুলোতে ভেজানো হচ্ছে কাচা-পাকা সুপারি। ভেজা এসব সুপারির দূর্গন্ধে ব্যাপকভাবে দূষিত হচ্ছে পরিবেশ আর ধ্বংস হচ্ছে জলজ প্রাণি।

অন্যদিকে বেশি লাভের আশায় পঁচা সুপারিতে রং ও বিষাক্ত কেমিক্যাল মেশাচ্ছেন ব্যবসায়ীরা। এসব সুপারি থেকে মরণব্যাধি ক্যান্সারসহ জনস্বাস্থ্য হুমকির মুখে রয়েছে বলে জানিয়েছেন অনেক চিকিৎসক।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের তথ্য মতে, লক্ষ্মীপুর জেলার প্রধান অর্থকরী ফসল সুপারি। দেশের উৎপাদিত সুপারির বেশির ভাগই উৎপন্ন হয় এ জেলায়। এবার এই জেলায় প্রায় সাড়ে ১০ হাজার টন সুপারির ফলন হয়েছে। যার বাজার মূল্য সাড়ে ৫শ’ কোটি টাকা। এখানকার উৎপাদিত সুপারির বেশির ভাগই খাল, ডোবা-পুকুর, নালায় ভিজিয়ে রেখে পরে বিক্রি করেন ব্যবসায়ীরা।

জানা যায়, সুপারি পাকা হাউসে ভেজানোর নিয়ম থাকলেও বেশি লাভের আশায় তা কেউই মানছেন না।

এদিকে রায়পুর উপজেলার বিভিন্ন স্হানে ও বাজারসহ বেশ কয়েকটি এলাকায় গিয়ে দেখা গেছে সুপারির পাকা রং ধরে রাখতে ভিজা সুপারিতে মেশানো হচ্ছে বিষাক্ত রং। ফলে ক্যান্সারসহ মানবদেহে বাড়ছে বিভিন্ন রোগের ঝুঁকিও। তবে স্থানীয় প্রশাসনের তদারকির অভাবে ধরা ছোঁয়ার বাইরে থাকছেন এসব ব্যবসায়ীরা।

স্থানীয়দের অভিযোগ অসাধু ব্যবসায়ীরা অধিক লাভের আশায় হাউজ না করে উন্মুক্ত জলাশয়ে সুপারি ভেজানোর ফলে পানি ব্যবহার করতে পারছেন না তারা। এছাড়াও পঁচা সুপারির দুর্গন্ধে দুর্বিষহ হয়ে উঠেছে আশপাশের এলাকার মানুষের জীবন।

শ্রমিক ও ব্যবসায়ীরা সুপারিতে রং মেশানোর কথা স্বীকার করে বলেন, ভালো দামের আশায় ও জেলার বাইরে বাজারজাত করতে রং মেশানো হয়।

জাতীয়পরিবেশ মানবাধিকার সোসাইটির (পরিবেশবাদী সংগঠন)লক্ষ্মীপুর জেলা সভাপতি জনাব হারুনুর রশিদ জানান, সুপারি প্রধান এলাকা লক্ষ্মীপুরে এক শ্রেনির অসাধু ব্যবসায়ীরা সুপারি উন্মুক্ত জলাশয়ে ভিজিয়ে পচান। ফলে অক্সিজেনের অভাবে জলজ উদ্ভিদ ধ্বংস হয়ে হুমকির মুখে পড়ছে পরিবেশ।

তবে প্রশাসনের সহায়তায় এসব করা হচ্ছে বলে অভিযোগ করে তিনি বলেন, প্রশাসন সচেতন হলে এ অবৈধ কাজ বন্ধ করা সম্ভব।

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করার চেষ্টা করলেও তা সম্বব হয়নি।

দেশ জার্নাল /এস.এম

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here