রায়পুরে প্রভাবশালীর হামলায় গরীব পরিবারের বসতঘর ভাংচুর, আহত-৭

94

সোহেল আলম:

লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে টিউবওয়েলের পানি নেয়াকে কেন্দ্র করে দিনমজুর পরিবারের উপর হামলা ও বসতঘর ভাংচুর করার অভিযোগ পাওয়া গেছে একই প্রতিবেশী প্রভাবশালীদের বিরুদ্ধে। এসময় একই পরিবারের ৭ জনকে নির্মমভাবে পিটিয়ে আহত করা হয়। ৩ নারীসহ বৃদ্ধ মাইনুদ্দিনকে (৫০) উদ্ধার করে রায়পুর সরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

ঘটনাটি ঘটেছে বুধবার রাতে (১৬ সেপ্টেম্বর) উপজেলার দক্ষিন চরবংশী ইউপির আখনবাজার এলাকায়। এঘটনায় বৃহস্পতিবার (১৭ সেপ্টেম্বর) দুপুরে মামলার প্রস্তুতি নিয়েছেন বলে ক্ষতিগ্রস্থ মাইনুদ্দিন মোল্লা জানান।

আহতরা হলেন, চা দোকানদার বৃদ্ধ মাইনুদ্দিন মোল্লা, তার স্ত্রী খতেজা বেগম, মেয়ে হোসনেয়ারা বেগম, নারগিস ও জেসমিন সহ ৭ জন।

আহত মাইনুদ্দিন মোল্লা জানান, প্রায় ২৫ বছর আগে তাদের পিতা টাকার বিনিময়ে বসতঘরের সামনে সরকারি ডিপটিউবওয়েল স্থাপন করেন। গত ২ মাস ধরে পানি নেয়াকে কেন্দ্র করে পাশের বাড়ীর প্রভাবশালী মুসলিম, জয়নাল ও দুলাল আখনসহ তাদের মহিলারা ঝগড়া ও মারামারি করে আসছে। বুধবার সন্ধায় পানির জন্য গেলে মুসলিমের পরিবার কলের মাথা নিয়ে যায়।

প্রতিবাদ করলে মুসলিম, জয়নাল ও দুলাল আখনসহ তার পরিবারের লোকজন নারীদের পিটিয়ে আহত করে বসতঘর ভাংচুর চালায়। পরে বাজারে চা দোকানে গিয়ে বৃদ্ধ মাইনুদ্দিনকে তারকাটা সংযুক্ত কাঠ দিয়ে পিটিয়ে রক্তাক্ত জখম করে।স্থানীয় লোকজন চার নারীসহ অসহায় দিনমজুর মাইনুদ্দিনকে উদ্ধার করে সরকারি হাসপাতালে ভর্তি করেছেন। এঘটনা হামলাকারীর চাচাতো ভাই ওয়ার্ডের মেম্বারের কাছে বিচার চাইলে তিনি উল্টো ধমক দিয়ে ঘটনাস্থল থেকে চলে যান।

এঘটনায় অভিযুক্ত মুসলিম, দুলাল ও জয়নাল আখন বলেন, সরকারি কলের পানি আনতে গিয়ে আমাদের মহিলাদেরকে গালমন্দ করা হয়। ঘটনার সময় আমাদের হাতাহাতি হয়েছে। বসতঘর ভাংচুর করিনি। কল নিয়ে গেছি, আবার দিয়ে দিয়েছি।

দক্ষিন চরবংশী ইউপি সদস্য আলী হোসেন বলেন, সরকারি টিউবওয়েলের পানি নিয় দুই পক্ষের মধ্যে মারামারির ঘটনাটি মিমাংসার চেষ্টা চলছে। আমার বিরুদ্ধে আনা মাইনুদ্দিনের অভিযোগ মিথ্যা।

রায়পুর থানার ওসি আবদুল জলিল বলেন, দুই পক্ষের মধ্যে মারামারি হয়েছে শুনেছি। ক্ষতিগ্রস্থরা লিখিত অভিযোগ দিলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

 

  •  
    86
    Shares
  • 86
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here