শুক্রবার , ২০ আগস্ট ২০২১ | ৯ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
  1. অনুসন্ধান
  2. অন্যান্য
  3. অর্থনীতি
  4. আইন-আদালত
  5. আর্ন্তজাতিক
  6. ক্যাম্পাস
  7. খেলাধুলা
  8. গণমাধ্যম
  9. জাতীয়
  10. ধর্ম
  11. নারী ও শিশু
  12. প্রবাস
  13. ফিচার
  14. বিনোদন
  15. মতামত

রায়পুরে নদী থেকে বালু উত্তোলন; হুমকিতে তীরবর্তী ঘর-বাড়ি, ফসলীজমিসহ রাস্তা।

প্রতিবেদক
দেশ জার্নাল
আগস্ট ২০, ২০২১ ২:০৫ পূর্বাহ্ণ
Desh Journal

 

রায়পুর প্রতিনিধিঃ

লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে মেঘনা নদী থেকে বহুদিন ধরে অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের মহোৎসব চলছে। বালু উত্তোলনের ফলে নদীর তীরবর্তী ঘর – বাড়ি, ফসলী জমি ও রাস্তা ভেঙে পড়ছে।

স্থানীয় লোকজন বলেন, বালু ব্যবসার সঙ্গে জড়িত ব্যক্তিরা প্রভাবশালী হওয়ায় তাদের বিরুদ্ধে কোথাও কোনো অভিযোগ দিতেও সাহস পাচ্ছিনা । এছাড়াও সংশ্লিষ্ট সবাইকে ম্যানেজ করেই মেঘনা ও ডাকাতিয়া নদী থেকে বালু তুলছেন বলে জানান।

জানা গেছে, রায়পুর উপজেলার উত্তর চরবংশি ইউনিয়নের মেঘনা নদীর আলতাফ মাস্টার মাছ ঘাট এলাকায় আবু তাহের, বিল্লাল কবিরাজ ও সোহেল সর্দার সহ কয়েকজন বালু দস্যু শ্রমিক দিয়ে বালু ও মাটি কেটে অবৈধ ব্যবসা করছেন। আর বালু বা মাটি বিক্রির জন্য তারা সরকারের কাছ থেকে কোনো অনুমতিও নেননি।

আর এই বালু তোলার ফলে মেঘনার পাড় এলাকার ফসলী জমি হুমকিতে পড়ছে এবং প্রতিদিন ট্রাকে করে অবৈধভাবে বালু বহনের কারণে রাস্তার মারাত্মক ক্ষতি হচ্ছে।

কৃষক রুবেল মাঝি বলেন, ‘কোনোভাবেই বন্ধ হচ্ছে না বালু উত্তোলন। মেঘনা নদীতে গভীর করে বালু উত্তোলন ও ফসলীজমি থেকে মাটি কাটার ফলে প্রতি বছরই বর্ষা মৌসুমে তার খেসারত দিতে হয় নদী ধারের জমির কৃষক ও মালিকদের। এতে নদীরগর্ভে ফসলি জমির ও ঘর-বাড়ি এবং গাছপালা বিলুপ্ত হয়।

এলাকাবাসীর দাবী, অবিলম্বে মেঘনা ও ডাকাতিযা নদী থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন বন্ধ করে দোষী ব্যক্তিদের শাস্তির ব্যবস্থা করা । আর প্রশাসনের কেউ এই চক্রের সঙ্গে জড়িত থেকে সুযোগ-সুবিধা নিচ্ছে কি না, সেটা তদন্ত করার দাবি জানান।

বালু ব্যবসায়ী আবু তাহের, বিল্লাল কবিরাজ, সোহেল সর্দার বলেন, ‘আমাদের মতো অনেকেই মেঘনা ও ডাকাতিয়া নদী থেকে বালু উত্তোলন করছেন। তাদের তো কিছুই বলছেন না-? মাত্র কয়েক গাড়ি বালু বিক্রি হয়েছে। কিছু টাকা দিয়ে দেই, তা নিয়ে চলে যান। রিপোট লেখলেও লাভ নাই। সবাই ম্যানেজ করেই বালু উত্তোলন করছি।

উত্তর চরবংশি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবুল হোসেন বলেন, ‘বালু উত্তোলনের বিষয়ে উপজেলা পরিষদের আইনশৃঙ্খলা মাসিক মিটিংয়ে কথা বলেছি। বালু উত্তোলনের ফলে নদী-তীরবর্তী ঘর-বাড়ি ও ফসলী জমি এবং রাস্তা ভাঙনের হুমকিতে পড়ছে। উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) অভিযান চালালেও আবার বালু তুলছেন তারা।

উপজেলার (ভূমি) আকতার জাহান সাথি বলেন, এ বিষয়ে আইনশৃঙ্খলা মিটিংয়ে আলোচনা হয়েছে। কয়েকবার ভ্রাম্যমান আদালতেও জরিমানাসহ ড্রেজার ভাংচুর করা হয়। শিগগিরই আবারও বালু উত্তোলনকারীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

দেশ জার্নাল /এসএ

আপনার মন্তব্য লিখুন

সর্বশেষ - আইন-আদালত

আপনার জন্য নির্বাচিত

লক্ষ্মীপুরে র‍্যাবের অভিযানে ১১ জুয়াড়ি গ্রেফতার

লক্ষ্মীপুরে ইউপি কমপ্লেক্স ভবন ও বিদ্যালয়ের নবনির্মিত ভবন উদ্বোধন

জামালপুর জেলা পুলিশের নির্মাণাধীন প্রকল্পসমূহ পরিদর্শন করেন ধর্ম প্রতিমন্ত্রী

যে কারণে প্রত্যেক দিন আয়নায় মুখ দেখবেন

সরিষাবাড়িতে হোটেল কর্মচারী হত্যার প্রধান আসামি গ্রেফতার

এইচএসসি ২০২২ পরীক্ষার্থীদের স্থগিত অ্যাসাইনমেন্ট আবারও চালু

পুলিশে কনস্টেবল নিয়োগ ১০ হাজার, আজ আবেদন শুরু।

জামালপুর রেলওয়ে জংশনে কালোবাজারে টিকেট বিক্রি, গ্রেফতার- ২

সিসিটিভি ফুটেজ দেখে নিখোঁজ মাদ্রাসার তিন ছাত্রী উদ্ধার

পরিচ্ছন্নতাকর্মীদের বংশানুক্রমে চাকরি দেয়ার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর