রায়পুরে প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে নিজের রান্না ঘরে আগুন দিল নিজেরাই

45

নিজস্ব প্রতিবেদক :

জমির সীমানার খুটি নিয়ে বিরোধের জের ধরে প্রতিবেশীকে ফাঁসাতে নিজ রান্না ঘরে আগুন দেওয়ার  পরিকল্পনা করেন। মামা আবদুল আলীর পরিকল্পনা অনুসারে এই অগ্নী কান্ড ও ভাংচুর করা হয়।

স্থানীয়রা জানান, গত রাত আনুমানিক ৩টার সময় কামালের রান্নাঘরে আগুল লাগে এবং পাশের টিনে কোপ দেখা যায়। ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখা যায় কামালের মা দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে কান্নাকাটি করে। তবে কে বা কাহারা এই ঘটনা করেছেন আমরা তা জানিনা। তবে কামালের মা রেজিয়া বেগম বলেন রকিব ও রাজু এই ঘটনা ঘটায়। রকিব ও রাজুর  বিষয়ে জানতে চাইলে রাকিবের কাকি রুনিয়া বেগম বলেন, আমি আমার বাচ্চা নিয়ে ঘরে ঘুমিয়ে ছিলাম।ভোর ৪টার সময় শুনেছি তাদের ঘরে আগুন ও কোপাকোপি কথা। রাকিব তার মা ও ছোট ভাই মারুফকে নিয়ে লক্ষ্মীপুর সদর হাসপাতালে ছিল। তারা বাড়িতে ছিল না, এটি সাজানো ঘটানা। রাকিবের বাবা বাড়িতে নাই (প্রবাসী)  তারা একা এই জন্য তাদের উপর দোষারোপ কারা হয়।

উল্লেখ্য, গত ৩০শে জুলাই বৃহস্পতিবার বিকাল ৫ টায় ১নং চর আবাবিল ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ড চর আবাবিল গ্রামে মোল্লা বাড়ির সিরাজ মোল্লার স্ত্রী বিউটি বেগম ও ছেলে মারুফ হোসেনকে দা-বটি দিয়ে কোপায়। আশংকাজনক অবস্থায় তাদেরকে লক্ষ্মীপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।এই ঘটনার জের ধরে রাকিব গংকে ফাঁসাতে  এই ঘটনা ঘটানো হয়।

রাকিবের কাছে  এই বিষয়ে সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলে আমার মা ও ভাইকে কুপিয়ে জখম করার তার পর থেকে তাদের  চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে ও নানার বাড়িতে আছি । এই বিষয়ে আমি থানায় মামালা করি। আমাকে একাধিক বার মামলা উঠিয়ে নেওয়ার জন্য বিভিন্ন মহল থেকে হুমকি দেওয়া হয়  । মামলা না উঠালে আমাকে মেরে ফেলা হবে আমার বাড়ি লুটতরাজ করবে। বাড়িতে থাকতে দেওয়া হবে না। বিভিন্ন মামালা দিয়ে হয়রানি করা হবে।   বর্তমানে  নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি। আমি স্থানীয় প্রশাসনের সহযোগিতা কামনা করি।

হায়দারগঞ্জ  পুলিশ ফাঁড়ির ইনর্চাজ জনাব জাহাঙ্গীর আলম বলেন, এই বিষয় সম্পর্কে আমি কিছু জানিনা। কোন অভিযোগ আসেনি। অভিযোগ ফেলে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here