মঙ্গলবার , ৭ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ১২ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
  1. অনুসন্ধান
  2. অন্যান্য
  3. অর্থনীতি
  4. আইন-আদালত
  5. আর্ন্তজাতিক
  6. ক্যাম্পাস
  7. খেলাধুলা
  8. গণমাধ্যম
  9. জাতীয়
  10. ধর্ম
  11. নারী ও শিশু
  12. প্রবাস
  13. ফিচার
  14. বিনোদন
  15. মতামত

গুলি করার পর সিনহার বুকে লাথি মারেন লিয়াকত আলী

প্রতিবেদক
দেশ জার্নাল
সেপ্টেম্বর ৭, ২০২১ ৯:৩২ অপরাহ্ণ
Desh Journal

 

অনলাইন ডেস্কঃ
সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মো. রাশেদ খানকে গুলি করার পর তার বুকে লাথি মারেন পুলিশ পরিদর্শক লিয়াকত আলী। মঙ্গলবার (৭ সেপ্টেম্বর) সিনহা হত্যা মামলার ৮ নম্বর সাক্ষী হাফেজ মো. আমিন আদালতকে এ তথ্য জানান।

আলোচিত হত্যা মামলাটির দ্বিতীয় দফার তৃতীয় দিন মঙ্গলবার (৭ সেপ্টেম্বর) কক্সবাজার আদালতে সাক্ষ্য দেন ৮ হাফেজ মো. আমিন। সাক্ষ্যদানের দিক থেকে তিনি পঞ্চম। ২০২০ সালের ৩১ জুলাই রাতে টেকনাফ মেরিন ড্রাইভ সড়কের শামলাপুর তল্লাশিচৌকিতে পুলিশের গুলিতে খুন হন সিনহা মো. রাশেদ খান। ঘটনার সময় হাফেজ মো. আমিন পাশের একটি মসজিদ কাম মাদ্রাসায় ছাদে ছিলেন। মসজিদ থেকে তল্লাশিচৌকির দূরত্ব ৩০-৪০ কদম বলে উল্লেখ করেন সাক্ষী হাফেজ। তিনি ওই মসজিদের ইমাম ছিলেন।

হাফেজ মো. আমিন আদালতে বলেন, সেদিন রাতে তল্লাশিচৌকির পাশে পুলিশ পরিদর্শক লিয়াকত আলীর গুলিতে সিনহা মাটিতে (সড়কে) পড়ে ছটফট করছিলেন। প্রাণ বাঁচানোর জন্য পানির জন্য আকুতি জানাচ্ছিলেন। লিয়াকত আলী সিনহার দিকে গিয়ে বুকে লাথি মারেন কয়েকবার। পা দিয়ে মাথাও চেপে ধরেন। এর কিছুক্ষণ পর টেকনাফের দিক থেকে সাদা মাইক্রোবাস নিয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছান প্রদীপ কুমার দাশ (টেকনাফ থানার তৎকালীন ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা)। তখনো সিনহা জীবিত ছিলেন এবং ‘পানি পানি’ করছিলেন। ওসি প্রদীপ তখন লাথি মারেন এবং পা দিয়ে গলা চেপে ধরে সিনহার মৃত্যু নিশ্চিত করেন।

কক্সবাজার জেলা ও দায়রা জজ আদালতে হাফেজ মো. আমিনের সাক্ষ্য গ্রহণ করেন রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী ফরিদুল আলমের নেতৃত্বে তিনজন আইনজীবী। এরপর আসামিপক্ষের অন্তত ১৩ আইনজীবী তাকে জেরা করেন। সাক্ষ্য গ্রহণের সময় আদালতের কাঠগড়ায় ছিলেন ওসি প্রদীপ কুমার দাশ, পরিদর্শক লিয়াকত আলীসহ ১৫ জন আসামি। আদালত পরিচালনা করেন জেলা ও দায়রা জজ মোহাম্মদ ইসমাইল।

এ দিন আসামিপক্ষের আইনজীবীরা সাক্ষীদের জেরার নামে সময়ক্ষেপণ করছেন বলে অভিযোগ করেছেন রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবীরা। আসামিপক্ষের আইনজীবীদের অভিযোগ, মূলত একটি স্বার্থান্বেষী মহলের শেখানো কথা বলার জন্য বিভিন্ন লোকজনকে সাক্ষী হিসেবে নিয়ে আসা হচ্ছে।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী ও পিপি ফরিদুল আলম বলেন, আজ মঙ্গলবারও একজন মাত্র সাক্ষীর জবানবন্দি গ্রহণ ও আসামিপক্ষের আইনজীবীদের জেরা সম্পন্ন হয়েছে। আসামিপক্ষের অন্তত ১৩ জন আইনজীবী জেরার নামে নানা অজুহাতে সময়ক্ষেপণ করছেন। এতে বিচাকাজে দীর্ঘসূত্রতা হচ্ছে। গত ২৩ আগস্ট থেকে শুরু হওয়া দুই দফার ছয় দিনে মাত্র পাঁচজন সাক্ষীর জবানবন্দি গ্রহণ সম্পন্ন হয়েছে। এই মামলার মোট সাক্ষী ৮৩ জন।

জেরার সময় প্রদীপ কুমার দাশের আইনজীবী রানাদাশ গুপ্ত হাফেজ মো. আমিনকে মিয়ানমারের অনুপ্রবেশকারী রোহিঙ্গা বলে দাবি করেন। হাফেজ আমিন তা সত্য নয় দাবি করে বলেন, তিনি টেকনাফের স্থায়ী বাসিন্দা। একই সময় রানাদাশ গুপ্ত জেলা কারাগারের অভ্যন্তরে আসামি ওসি প্রদীপ কুমার দাশকে সুযোগ-সুবিধা (ডিভিশন) দেয়া হচ্ছে না জানিয়ে আদালতে আরেকটি নালিশি আবেদন করেন।

সাক্ষ্য গ্রহণ শেষে বিকেল সাড়ে পাঁচটায় আদালত প্রাঙ্গণে আইনজীবী রানাদাশ গুপ্ত সাংবাদিকদের বলেন, ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী হিসেবে আজকে (মঙ্গলবার) হাফেজ মো. আমিন নামে যাকে সাক্ষ্য দিতে আনা হয়েছে, তিনি মিয়ানমারের অনুপ্রবেশকারী রোহিঙ্গা। তিনি যে মসজিদের ইমাম বলে দাবি করছেন, তাও সত্য নয়। জেরার সময় ওই মসজিদ পরিচালনা কমিটির সভাপতি-সেক্রেটারির নামও বলতে পারেননি এই সাক্ষী। মূলত একটি স্বার্থান্বেষী মহল শেখানো কথা বলার জন্য বিভিন্ন লোকজনকে নিয়ে আসছে।

এ প্রসঙ্গে বাদীপক্ষের আইনজীবী মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর সাংবাদিকদের বলেন, সাক্ষীদের অপ্রাসঙ্গিক বিষয়ে জেরা করে মূলত আসামিপক্ষের আইনজীবীরা সময়ক্ষেপণ করছেন। সাক্ষীদের মধ্যে কে সিএনজিচালক, কে মসজিদের ইমাম তার প্রমাণ নিতেই ব্যস্ত তারা।

দেশ জার্নাল /এসএ

আপনার মন্তব্য লিখুন

সর্বশেষ - আইন-আদালত

আপনার জন্য নির্বাচিত

জেলার আ’লীগের সভাপতিকে হত্যার চেষ্টা মামলায় ৩৩ আসামীর জামিন নামঞ্জুর।

লক্ষ্মীপুরে গৃহবধূকে অপহরণ করে ধর্ষণ; আটক এক

শূন্যপদে ডিসেম্বরে কয়েকটি নিয়োগ পরীক্ষা ৩ লাখ ৮০ হাজার ৯৫৫টি পদ খালি

গলাচিপায় যৌতুকের দাবিতে গৃহবধূকে নির্যাতন

তালেবানের বিকল্প নেই: বললেন রাশিয়া

গ্রেনেড হামলায় নিহতদের স্মরণে চন্দ্রগঞ্জে দোয়া

রায়পুরে ৬ মাসে দেড় শতাধিক নরমাল ডেলিভারি করায় চিকিৎসককে সংবর্ধনা দিলেন মা ও শিশু হাসপাতাল

ব্যারিস্টার সুমনকে যুবলীগ থেকে অব্যাহতি

ব্যারিস্টার সুমনকে যুবলীগ থেকে অব্যাহতি

রায়পুরের বামনী ইউনিয়ন ৮নং ওয়ার্ডে জনপ্রিয়তার শীর্ষে সিলিং ফ্যান মার্কার প্রার্থী তছলিম উদ্দিন

রায়পুরে নানা আয়োজনে মহান বিজয় দিবস উদযাপন