বৃহস্পতিবার , ১২ আগস্ট ২০২১ | ৮ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
  1. অনুসন্ধান
  2. অন্যান্য
  3. অর্থনীতি
  4. আইন-আদালত
  5. আর্ন্তজাতিক
  6. ক্যাম্পাস
  7. খেলাধুলা
  8. গণমাধ্যম
  9. জাতীয়
  10. ধর্ম
  11. নারী ও শিশু
  12. প্রবাস
  13. ফিচার
  14. বিনোদন
  15. মতামত

ক্লিনিক মেঘনা নদীতে বিলীন, দুইবছরে হয়নি পুনঃস্থাপণ

প্রতিবেদক
দেশ জার্নাল
আগস্ট ১২, ২০২১ ১০:৪২ অপরাহ্ণ
Desh Journal

 

লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধিঃ

লক্ষ্মীপুর জেলার কমলনগর উপজেলার প্রথম কমিউনিটি ক্লিনিকটি মেঘনা নদীর ভাঙনে বিলীন হওয়ার প্রায় দুই বছর হলেও পুনঃস্থাপিত হয়নি। বর্তমানে চিকিৎসা কার্যক্রম চলছে ভাড়া একটি খুপড়ে দোকানঘরে। এতে ব্যাহত হচ্ছে চিকিৎসা সেবা কার্যক্রম।

স্থানীয় দুইজন সমাজ সেবক ক্লিনিকের জন্য জমি দান করলেও নির্মাণের উদ্যোগ নেই। চিকিৎসাসেবা নিশ্চিত করতে দ্রুত ক্লিনিকটি স্থায়ীভাবে স্থাপনের দাবি জানান এলাকাবাসী ও জমি দাতারা। এতে মেঘনা পাড়ের অসহায় দরিদ্র রোগীদের দুর্ভোগ ও চিকিৎসাসেবা নিশ্চিত হবে।

তাদের জমিতে নির্মাণ হওয়ায় ক্লিনিকটির নাম দেয়া হয়েছে ‘আবুয়াল হোসেন কমিউনিটি ক্লিনিক’। ২০১৯ সালের সেপ্টেম্বর মাসে একতলা বিশিষ্ট ওই ক্লিনিকের পাকা ভবনটি নদীতে বিলীন হয়ে যায়।

১৯৯৭ সালে উপজেলার চর ফলকন গ্রামের তালুকদার বাড়ির সামনে উপজেলার প্রথম কমিউনিটি ক্লিনিকটি নির্মাণ করা হয়। চর ফলকন লুধূয়া এলাকার বাসিন্দা মরহুম আবুল হোসেন তালুকদারের ছেলেরা সরকারিভাবে ক্লিনিকটি স্থাপনের জন্য জমি দান করেন।

ক্লিনিকটি নদীতে বিলীন হওয়ার পর পাটারিরহাট ইউনিয়নের বোয়ালিয়া এলাকায় একটি মক্তবে এক বছর ছয় মাস কার্যক্রম চালানো হয়। ওই মক্তবে মাদ্রাসার শ্রেণি কার্যক্রম চালু হওয়ায় ক্লিনিকটি সরিয়ে নেওয়া হয়। গত চার মাস থেকে চিকিৎসা কার্যক্রম চালানো হচ্ছে একটি ভাড়া দোকানঘরে। প্রতিদিন প্রায় ১৫০জন রোগী ক্লিনিকে চিকিৎসা নিতে আসেন। কিন্তু স্থায়ী ভবন না থাকায় ওই দোকানঘরে চিকিৎসা নিতে আসা লোকজন পড়ে ভোগান্তিতে। করোনা পরিস্থিতির কারণে রোগী চাপ আরও বেড়ে গেছে। এমন পরিস্থিতিতে ওই ভাড়া ঘরে চিকিৎসা সেবা চালিয়ে নিতে হিমশিম খেতে হচ্ছে দায়িত্বে থাকা চিকিৎসকের।

জানা গেছে, ক্লিনিকটি পুনঃস্থাপনের জন্য ২০২০ সালের ৫ জানুয়ারি পাটারিরহাট ইউনিয়নের বাসিন্দা সমাজসেবক অ্যাডভোকেট এম এ মালেক ৫ শতাংশ ও তার ভাই আবুল কালাম ১ শতাংশ জমি রেজিস্ট্রেশনের মাধ্যমে দান করেন। কিন্তু ওই ৬ শতাংশ জমিতে ক্লিনিক স্থাপনের এখনো কোনো উদ্যোগ দেখা যায়নি।

জমিদাতা অ্যাডভোকেট এম এ মালেক বলেন, এলাকার দ্ররিদ্র জনগোষ্ঠীর কথা বিবেচনা করে স্থানীয়দের চিকিৎসা সেবায় ক্লিনিক নির্মাণের জন্য জমি দান করেছি। জমি দানের দেড় বছর পার হয়ে গেলেও ক্লিনিক নির্মাণ হয়নি, বিষয়টি খুবই দুঃখজনক।

কমিউনিটি ক্লিনিকের হেলথ কেয়ার প্রোভাইডার (সিএইচসিপি) কামরুল আহসান বলেন, উপকূলীয় অসহায় মানুষ প্রতিদিনই চিকিৎসা নিতে ভিড় করেন। ভাড়া করা ওই দোকানঘরে চিকিৎসা সেবা দেওয়ার পরিবেশ নেই। রোগীরাও পড়ছেন বিড়ম্বনায়। নদী ভাঙনে বিলীন হওয়ার পর দুই বছর এই ঘরে চলে চিকিৎসা সেবা।

কমলনগর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. আবু তাহের বলেন, কমিউনিটি ক্লিনিকটি বিলীন হওয়ার বিষয়টি উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে; আশা করছি দ্রুত সময়ের মধ্যে পুনঃস্থাপণের ব্যবস্থা করবেন।

দেশ জার্নাল /এসএ

আপনার মন্তব্য লিখুন

সর্বশেষ - আইন-আদালত

আপনার জন্য নির্বাচিত

পূজামণ্ডপে কোরআন অবমাননাকারীদের শাস্তির দাবিতে সমাবেশ ও বিক্ষোভ

প্রেসিডেন্ট হিসেবে আনুষ্ঠানিক দায়িত্ব পেলেন ইব্রাহিম রাইসি

লক্ষ্মীপুরে বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন নেছা মুজিবের ৯১তম জন্মবার্ষিকীতে সেলাই মেশিন বিতরণ

‘ভুয়া’ মুক্তিযোদ্ধার সনদ দশ হাজার বাতিল হলো

গুলি করার পর সিনহার বুকে লাথি মারেন লিয়াকত আলী

লক্ষ্মীপুর নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ মাসুমের পদোন্নতি জনিত বিদায় সংবর্ধনা

শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবসে হাজেরা হাসমত কলেজে আলোচনা সভা

জামালপুরে কম্বাইন্ড হিউম্যান রাইটস্ ওয়ার্ল্ডের মানবাধিকার বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত

লক্ষ্মীপুর প্রেসক্লাবের মানববন্ধন : ১১ সাংবাদিকের বিরুদ্ধে মামলা প্রত্যাহারের দাবী

লক্ষ্মীপুরে বিদেশগামী ৩০৯ পরিবার পেল কোয়ারেন্টাইন খরচ